সংস্করণ: ২.০১

স্বত্ত্ব ২০১৪ - ২০১৭ কালার টকিঙ লিমিটেড

Oil.jpg

গুনাগুণ কিছু গুন সরিষার তেলেও

সেই সুপ্রাচীন কাল থেকে মানুষের জীবনের সাথে ওতপ্রোতভাবে জড়িয়ে আছে সরিষার তেল। কেবল রান্নার কাজে নয়, রূপচর্চার ক্ষেত্রেও সরিষার তেলের আছে সমান দাপট। সরিষার তেল যতটা উপকারী চুলের যত্নে, ঠিক ততটা উপকারী ত্বকের যত্নেও। তাই তো আধুনিক যুগের এতসব রূপচর্চার উপাদানের ভিড়েও সরিষার তেলের আবেদন কমেনি একবিন্দু।

সরিষার তেল স্বাস্থ্যের জন্য উপকারী এটা শুনে অনেকেই হয়তো অবাক হবেন। সরিষার তেল বহুকাল ধরে রান্নাবান্নার কাজে ব্যবহৃত হয়ে আসছে। আপনি দেখবেন আমাদের দাদা-দাদীরা ৪০ বছর বয়সে হৃদরোগে আক্রান্ত হন না। কেননা তারা সরিষার তেল খেতেন। সরিষার তেল প্রথমত পাকস্থলীতে খুদা বাড়িয়ে দেয় । আর খুদা আদর্শিক স্বাস্থ্যের একটি লক্ষণ। সরিষার তেল ঠাণ্ডা ও কফের জন্য খুবই উপকারী।

যারা দীর্ঘ দিন সর্দি-কাশিতে ভোগেন তাদের জন্য সরিষার তেল খুবই উপকারী। বুকের মধ্যে নিয়মিত সরিষার তেল মালিশ করলে শ্বাসকষ্ট থেকে আরোগ্য লাভ করা যায়। এ ছাড়া যারা দীর্ঘ দিন ধরে বিভিন্ন ঠাণ্ডাজনিত সমস্যায় ভুগছেন তাদের জন্য সরিষার তেল খুবই উপকারী।

সরিষার তেল শ্বাসপ্রশ্বাসজনিত সমস্যা প্রতিরোধ করে। এই তেল রোদের তাপ থেকে ত্বক সুরক্ষায় খুবই উপকারী। নিয়মিত এই তেল ব্যবহার করলে এটা আপনাকে রোদের প্রচণ্ড তাপ থেকে রক্ষা করবে।

সরিষার তেলের আরেকটি ইতিবাচক দিক  হচ্ছে, এটি অন্য যেকোনো তেলের চেয়ে তুলনামূলক আগে হজম হয়। পাকস্থলীতে এটা সব জিনিসকে দ্রুত হজমে সহায়কও। সরিষার তেল দেহের কোলস্টেরলের মাত্রা ঠিক রাখে । নিয়মিত সরিষার তেল খেলে দেহ থেকে খারাপ কোলস্টেরল বের হয়ে যায়। বলা যায়, সরিষার তেল সব রোগ প্রতিরোধে সহায়ক একটি আদর্শ খাবার।

অন্যান্য গুনাগুণ:

  • শরীরের কলেস্টেরলের মাত্রা কমিয়ে দেয় যা হৃদরোগের সম্ভবনা হ্রাস করে।
  • নিদ্রাহীনতা এবং ক্যান্সার প্রতিরোধক।
  • সন্ধিস্থলের ব্যাথা হ্রাস করে।
  • শ্বাস কস্টের প্রদাহ হ্রাস করে।
  • চুলের মান উন্নত করা , খুসকি দূর করে এবং চুল বৃদ্ধি করে।
  • মাথা ব্যথা কমায়।
  • দাঁত মজবুত করে এবং ব্যাথা কমায়।
  • শুষ্ক ত্বক মসৃণ ও কোমল করে।
  • ঠোঁটের শুস্কতা দূর করে এবং ত্বকের প্রদাহ দূর করে।
  • কোষ্ঠকাঠিন্য দূর করে।
  • নাকের বদ্ধভাব দূর করে।
  • কানের ব্যাথায় কানের ড্রপের বিকল্প।
  • সামান্য কাটা ছেঁড়ায় এন্টিসেপটিক এর কাজ করে।
একটা সময় ছিল, যখন এই দেশের ঘরে ঘরে রান্নায় ব্যবহৃত হতো এই তেল। কালের বিবর্তনে সেই দিন আর নেই, তবে এখনও বিশেষ বাঙালি রান্নায় সরিষার তেল চাই-ই চাই।

নানান গুনগত মানের কারণে এই তেল শরীরের জন্য উপকারী। সরিষার তেল গরম করে মাথার ত্বকে লাগিয়ে ২০ মিনিট রেখে শ্যাম্পু করুন। দেখবেন খুশকি একেবারেই সেরে যাবে।

ছোট বাচ্চাদের গায়ে সরিষার তেল মাখিয়ে ম্যাসাজ করা তো বহু প্রচলিত দৃশ্য আমাদের দেশে। সাইনাসের রোগীদের জন্যও উপকারী বিবেচিত হয়।

এখানে প্রকাশিত প্রতিটি লেখার স্বত্ত্ব ও দায় লেখক কর্তৃক সংরক্ষিত। আমাদের সম্পাদনা পরিষদ প্রতিনিয়ত চেষ্টা করে এখানে যেন নির্ভুল, মৌলিক এবং গ্রহণযোগ্য বিষয়াদি প্রকাশিত হয়। তারপরও সার্বিক চর্চার উন্নয়নে আপনাদের সহযোগীতা একান্ত কাম্য। যদি কোনো নকল লেখা দেখে থাকেন অথবা কোনো বিষয় আপনার কাছে অগ্রহণযোগ্য মনে হয়ে থাকে, অনুগ্রহ করে আমাদের কাছে বিস্তারিত লিখুন।

bone, pain, Disease, heart, cholesterol, Health, Nutrition, Oil, Mustard