সংস্করণ: ২.০১

স্বত্ত্ব ২০১৪ - ২০১৭ কালার টকিঙ লিমিটেড

DSCN2633.JPG

বীথি'স পাঁচফোড়নের খিচুড়ি

স্বরসতী পূজার দিন বন্ধুদের সাথে প্রসাদের খিচুড়ি তো কতই খেয়েছেন। অন্যরকম একটা স্বাদ তাইনা। সেই অন্য স্বাদের খিচুড়ি আপনি চাইলে বাড়িতেও রান্না করে খেতে পারেন।


বৃষ্টির দিন হলে খিচুড়ি খেতে ইচ্ছে করে না, এমন মানুষ খুঁজে পাওয়া মুশকিল। সেই খিচুড়িই একটু ভিন্ন স্বাদে কিভাবে রান্না করা যায় তাই বলবো আজ। সনাতন ধর্মের যারা আছেন, তারা হয়তো সকলেই জানেন। কিন্তু যারা জানেন না তাদের জন্য রইল রেসিপি।

উপকরন:
  • চাল: ১ কাপ
  • ডাল: ১/৩ কাপ
  • আলু: মাঝারি একটা
  • পটল: ২ টি
  • মিষ্টি কুমড়ো, মাঝারি আকারে কাটা: ৭/৮ টুকরো
  • কাঁচামরিচ, চিরে নেয়া: ২/৩ টি
  • শুকনা মরিচ: ২/৩ টি
  • হলুদ গুঁড়ো: ১/২ চা চামচ
  • মরিচ গুঁড়ো: ১/২ চা চামচ
  • ধনে গুঁড়ো: ১/২ চা চামচ
  • গোটা পাঁচফোড়ন: ১ চা চামচ
  • আদা বাটা: ১/২ চা চামচ
  • তেল: পরিমানমত
  • লবণ: স্বাদমত
  • পানি: ৫ কাপ
প্রণালী: 
  • আলু ও পটল খোসা ছাড়িয়ে ডুমো ডুমো করে কেটে নিন।
  • সব সবজি আলাদা আলাদা করে ভেজে তুলে রাখুন।
  • এবার পাত্রে পরিমানমত তেল দিয়ে পাঁচফোড়ন আর শুকনো মরিচ ছেড়ে দিন।
  • সুগন্ধ বের হলে ধুয়ে রাখা চাল ও ডাল দিয়ে ভেজে নিন। আদা বাটা দিন। আরও কয়েক সেকেন্ড ভাজুন।
  • পানি দিয়ে দিন। এরপরে হলুদ গুঁড়ো, মরিচ গুঁড়ো, ধনে গুঁড়ো  দিয়ে ভালোভাবে নেড়ে মাঝারি আঁচে রান্না করুন।
  • ৫/৭ মিনিট পর সবজি গুলো দিয়ে দিন।
  • পানি কমে আসলে আঁচ কমিয়ে দমে বসান। এসময় কাঁচা মরিচ দিয়ে দিন। খিচুড়ি নরম আর মাখা মাখা হয়ে আসলে নামিয়ে নিন।
  • পানি খুব শুকিয়ে গেলে ঠাণ্ডা হবার পর খিচুরি দলা দলা হয়ে যাবে, তাই পুরো পানি শুকানোর প্রয়োজন নেই। পানি যদি খুব শুকিয়ে যায়, তাহলে সামান্য গরম পানি  দিতে পারেন।
  • পটল ভাজা বা বেগুন ভাজার সাথে পরিবেশন করুন। 

এখানে প্রকাশিত প্রতিটি লেখার স্বত্ত্ব ও দায় লেখক কর্তৃক সংরক্ষিত। আমাদের সম্পাদনা পরিষদ প্রতিনিয়ত চেষ্টা করে এখানে যেন নির্ভুল, মৌলিক এবং গ্রহণযোগ্য বিষয়াদি প্রকাশিত হয়। তারপরও সার্বিক চর্চার উন্নয়নে আপনাদের সহযোগীতা একান্ত কাম্য। যদি কোনো নকল লেখা দেখে থাকেন অথবা কোনো বিষয় আপনার কাছে অগ্রহণযোগ্য মনে হয়ে থাকে, অনুগ্রহ করে আমাদের কাছে বিস্তারিত লিখুন।

puja, rain, sanatan, panchforon, khinchuri