সংস্করণ: ২.০১

স্বত্ত্ব ২০১৪ - ২০১৭ কালার টকিঙ লিমিটেড

Vapa-Pitha-Cake.jpg

লোপা সাঈদা'স ঘরেই তৈরী করুন ভাপা পিঠা কেক

ভাপা পিঠা সবাই পছন্দ করে। স্বাস্থ্যকর একটি খাবার। কিন্তু বাইরে থেকে কিনে খেতে গেলে স্বাস্থ্যকর হয়না সব সময়। তাই ঘরেই যদি সেই পিঠা কম সময় ব্যয় করে বানানো যায় তাহলে ক্ষতি কি।

আজকাল সবাইকেই খুব ব্যস্ত সময় কাটাতে হয়। তাই সব কিছুর পেছনে ব্যয় করার মতো সময় কমে এসেছে। কোন কাজ কত কম সময়ে করা যায় সেই উপায় অনেকেই খুঁজে থাকেন। তবে তাই বলে খাবার শখ তো বাদ দিয়ে দেয়া যায় না। শীতকাল এসেছে পিঠা খাব না তা তো হয় না।

ভাপা পিঠা সবাই পছন্দ করে। স্বাস্থ্যকর একটি খাবার। কিন্তু বাইরে থেকে কিনে খেতে গেলে স্বাস্থ্যকর হয়না সব সময়। তাই ঘরেই যদি সেই পিঠা কম সময় ব্যয় করে বানানো যায় তাহলে ক্ষতি কি। একটা একটা করে ভাপা পিঠা বানাতে অনেক সময় লেগে যায়। তাই সেই ভাপা পিঠা যদি একসাথে বড় একটা কেক স্টাইলে বানানো যায় তাহলে অনেক সময় বেঁচে যায়। চলুন তাহলে দেখে নেই কিভাবে সেটা তৈরি করবেন।  

উপকরণ:

  • চালের গুঁড়া: ২ ১/২ কাপ
  • খেজুরের গুড়: আধা কাপ বা আপনার পছন্দ অনুযায়ী
  • তরল ঘন দুধ বা ক্রিম: ৪ টেবিল চামচ
  • লবন: পরিমান মত
  • কুড়ানো নারিকেল: আধা কাপ
  • মাওয়া: ১/৪ কাপ (ইচ্ছে)
  • পানি: যদি প্রয়োজন হয়

প্রণালী:
চালের গুড়া, লবন, মাওয়া ও সামান্য একটু পানি দিয়ে মিশিয়ে নিন। যদি খুব শুকনো থাকে তাহলে আরো একটু পানি দিন। এই চালের গুঁড়াকে বড় একটি চালুনিতে ঘষে ঘষে চেলে নিতে হবে।

এবার স্টীমারে পানি দিয়ে চুলায় বসিয়ে দিন পানি গরম হওয়ার জন্য। আবার একটি ছড়ানো বাটিতে এক লেয়ার চালের গুঁড়া দিয়ে তার উপর গুঁড় ভেঙ্গে গুঁড়ো করে ছড়িয়ে দিন। এরপর দিন কুড়ানো নারিকেল, কিছুটা ঘন দুধ বা ক্রিম। আবার এর উপর চালের গুঁড়ো দিয়ে গুঁড় ভাঙ্গা, কুড়ানো নারিকেল এবং ক্রিম দিন। এই প্রক্রিয়াটি আরো একবার করুন করুন। সবশেষে উপরে আবার চালের গুঁড়া দিয়ে উপরে কুড়ানো নারিকেল ছড়িয়ে পাতলা কাপড় দিয়ে বাটিটা পেচিয়ে স্টিমারে উলটো করে ভাপা পিঠার মত দিয়ে ঢেকে দিন।

১ মিনিট পর বাটিটা তুলে নিন। এই প্রক্রিয়াটি ছোট করে যেভাবে ভাপা পিঠা বানায় ঠিক একই হবে। শুধু এখানে বড় বাটি দেয়া হয়েছে। ১৫-২০ মিনিট পর নামিয়ে নিন। সামান্য কিছুটা ঠাণ্ডা হলে কেটে পরিবেশন করুন। এটা রাইস কুকারের স্টিমারেও করা যাবে।  


এখানে প্রকাশিত প্রতিটি লেখার স্বত্ত্ব ও দায় লেখক কর্তৃক সংরক্ষিত। আমাদের সম্পাদনা পরিষদ প্রতিনিয়ত চেষ্টা করে এখানে যেন নির্ভুল, মৌলিক এবং গ্রহণযোগ্য বিষয়াদি প্রকাশিত হয়। তারপরও সার্বিক চর্চার উন্নয়নে আপনাদের সহযোগীতা একান্ত কাম্য। যদি কোনো নকল লেখা দেখে থাকেন অথবা কোনো বিষয় আপনার কাছে অগ্রহণযোগ্য মনে হয়ে থাকে, অনুগ্রহ করে আমাদের কাছে বিস্তারিত লিখুন।

স্বাস্থ্যকর, কেক, সুস্বাদু, ভিন্নধর্মী, শীতকাল, পিঠা-পুলি, ভাপা-পিঠা